মেয়র মীরুর শর্টগানের গুলিতেই সাংবাদিক শিমুল নিহত হন

নিউজ ডেস্ক: শাহজাদপুর পৌর মেয়র হালিমুল হক মিরুর শর্টগানের গুলিতেই সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুল নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন সিরাজগঞ্জের পুলিশ সুপার মিরাজ উদ্দিন আহমেদ।

সিআইডির ব্যালেস্টিক রির্পোট বিষয়ে সোমবার দুপুর ২টায় তার নিজ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ তথ্য জানান।

পুলিশ সুপার বলেন, সাংবাদিক শিমুলের মাথার ভিতর থেকে ময়নাতদন্তের সময় উদ্ধার করা গুলির সঙ্গে মেয়র মীরুর শর্টগানের গুলির মিল পাওয়া গেছে। সিআইডির ব্যালেস্টিক পরীক্ষার রির্পোট থেকে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে। তাই নিশ্চিতভাবেই বলা যায়, মেয়র মীরুর গুলিতেই সাংবাদিক শিমুল নিহত হয়েছেন।

তিনি বলেন, সাংবাদিক শিমুলের মাথায় পাওয়া গুলিটি মেয়র মীরুর শর্টগানের কি না তা নিশ্চিত হতে গত ৮ ফেব্রুয়ারি সিআইডির ব্যালেস্টিক পরীক্ষাগারে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়। সম্প্রতি এ পরীক্ষার রির্পোটটি এসে পৌঁছেছে। রির্পোটে সাংবাদিক শিমুলের মাথায় বিদ্ধ গুলির সঙ্গে মেয়র মীরুর শর্টগানে ব্যবহৃত কার্তুজের গুলির মিল পাওয়া গেছে।

এর আগে সোমবার সকালে সাংবাদিক শিমুল হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মনিরুল ইসলাম জানান, সিআইডির ব্যালেস্টিক রিপোর্টের একটি কপি আমাদের হাতে এসে পৌঁছেছে।

অপরদিকে শাহজাদপুর আমলী আদালতের জিআরও আতাউর রহমানও জানান, সিআইডির ব্যালেস্টিক রিপোর্টের একটি কপি আদালতেও পৌঁছেছে।

উল্লেখ্য, ২ ফেব্রুয়ারি ছাত্রলীগ নেতা বিজয় মাহমুদকে মেয়র মীরুর দুই ভাই অস্ত্রের মুখে মেয়রের বাড়িতে তুলে নিয়ে হাত-পা ভেঙে ভ্যানে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে বিজয়ের সমর্থকরা মেয়র মীরুর মনিরামপুরের বাড়ি অভিমুখে প্রতিবাদী মিছিল করে। এ সময় মেয়র মীরু ও তার ভাই মিন্টু শর্টগান দিয়ে গুলি ছুড়তে ছুড়তে মিছিলকারীদের ধাওয়া করে।

মেয়র মীরুর শর্টগানের গুলি সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুলের মাথায় বিদ্ধ হলে তিনি গুরুতর আহত হয়। পরদিন ৩ ফেব্রুয়ারি উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেয়ার পথে তিনি মারা যান।