‘সুরঞ্জিতের মৃত্যুতে জাতি এক উজ্জ্বল নক্ষত্রকে হারালো’

স্টাফ রিপোর্টার: আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ এমপি বলেছেন, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত রাজনীতিকে ব্রত হিসেবে নিয়েছিলেন। তিনি ছিলেন রাজনীতির এক উজ্জ্বল নক্ষত্র। তার মৃত্যুতে জাতি এক উজ্জ্বল নক্ষত্রকে হারালো।

আজ রবিবার ধানমন্ডির ঝিগাতলা সুরঞ্জিত সেনের বাসায় তার মরদেহ দেখতে গিয়ে এরকম স্মৃতিচারণ করেন তিনি।

হাছান মাহমুদ বলেন, এদেশের রাজনীতির ইতিহাসে সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত একজন অতুলনীয় পার্লামেন্টারিয়ান ছিলেন। তার মতো আর একজনও পার্লামেন্টারিয়ান নেই। তরুণ বয়স থেকেই তিনি রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হয়েছিলেন।

সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের মরদেহ সকাল ৯টার দিকে ধানমন্ডির ঝিগাতলার নিজ বাসভবনে অ্যাম্বুলেন্সে করে নেয়া হয়।

এরপর থেকেই দলীয় নেতাকর্মী, সংসদ সদস্যরা উপস্থিত হন। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমীন চৌধুরী, চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য এস এম কামাল হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক পংকজ দেবনাথ, আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য সুজিত রায় নন্দীসহ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সুরঞ্জিত সেনের বাসায় উপস্থিত হয়েছেন।

দীর্ঘদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত। বৃহস্পতিবার অসুস্থবোধ করায় শুক্রবার সকালে তাকে রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার ফুসফুসের সংক্রমণ হয়েছে বলে শনাক্ত হয়। শনিবার অবস্থার অবনতি হলে তাকে লাইফ সাপোর্টে স্থানান্তরিত করেন চিকিৎসকরা। রবিবার ভোর ৪টা ২৪ মিনিটে তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা।