সেতুর রেলিং ভেঙে বাস খালে, নিহত ৯

busনিউজ ডেস্ক: মাদারীপুর সদর উপজেলায় সমাদ্দার সেতুর রেলিং ভেঙে যাত্রীবাহী একটি বাস খালে পড়েছে। এতে বাসে থাকা নয় যাত্রী নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরো অনেকে।

শুক্রবার দুপুর ২টার দিকে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এর পরপরই সেতুর দুই পাড়ে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

সরেজমিন, স্থানীয়, আহত, হাসপাতাল, পুলিশ ও ফায়াস সার্ভিস সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা বরিশালগামী সুগন্ধা পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস (ঢাকা মেট্রো-ব ০২-০৫২৯) মাদারীপুর সদর উপজেলার সমাদ্দার ব্রিজের উপর পৌঁছালে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ব্রিজের রেলিং ভেঙে খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই পাঁচ যাত্রী নিহত হন। মাদারীপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে সেখানে আরো তিন যাত্রী মারা যান। এ ছাড়া রাজৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে আরো এক যাত্রী মারা যান। সব মিলিয়ে নিহতের সংখ্যা এ পর্যন্ত ৯ জনে দাঁড়িয়েছে।

নিহত সাতজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। এরা হলেন- বরিশাল উজিরপুরের নিবারণ বাড়ৈর ছেলে হিরু লাল বাড়ৈ (৬০), ঝালকাঠি জেলার কাঁঠালিয়া উপজেলার তারামুনিয়া গ্রামের সুফিয়া বেগম (৫০), ঢাকার বাসিন্দা আ. রশিদের ছেলে বাসের সুপারভাইজার টিটু (৪০), পিরোজপুরের বাসিন্দা বাসের হেলপার মো. আলী আহম্মেদ (৪৫), মিজান (৪০), ঝালকাঠির সুজন (৩০) এবং শাহ আলম।

দুর্ঘটনায় অন্তত ৩৫ যাত্রী আহত হয়েছে। আহতদের মাদারীপুর সদর হাসপাতাল, রাজৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, বরিশাল শেরে বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এবং ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

খবর পেয়ে মাদারীপুর ও রাজৈর থেকে পুলিশ, র‍্যাব এবং ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে আহতের চিকিৎসার ব্যবস্থাসহ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। মাদারীপুর ফায়ার সার্ভিসের উপসহকারী পরিচালক মো. নজরুল ইসলাম বলেন, ঘটনাস্থল থেকে পাঁচজনের লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। আহতদের চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

মাদারীপুর মডেল থানার ওসি মো. জিয়াউল মোর্শেদ ও রাজৈর থানার ওসি মো. আনোয়ার হোসেন ভূঁইয়া বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতদের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া আহতদের চিকিৎসার জন্য সব ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। মাদারীপুরের সহকারী পুলিশ সুপার মো. মনিরুজ্জামান ফকির বলেন, নিহত কয়েকজনের পরিচয় এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।