যেভাবে এখনো প্রেসিডেন্ট হতে পারেন হিলারি

usaনিউজ ডেস্ক: ডোনাল্ড ট্রাম্পের চেয়ে ২ লাখ জনপ্রিয় ভোট বেশি পেয়েও প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে পারেননি হিলারি ক্লিনটন। বিতর্কিত প্রার্থী ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ায় বিক্ষোভে উত্তাল যুক্তরাষ্ট্রে এখনো ছোট সম্ভাবনা রয়েছে হিলারির।

বুধবার পর্যন্ত পাওয়া খবরে ২৯০টি ইলেকটোরাল কলেজের ভোট পেয়েছেন রিপাবলিকান প্রার্থী ট্রাম্প, হিলারির ভোট ২২৮টি। যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্রের দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট পার্লামেন্টের নির্বাচিত সদস্যদের দ্বারা গঠিত ইলেকটোরাল কলেজ প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করে, কার্যত যেই ভোটটি নিজ নিজ রাজ্যে অনুষ্ঠিত হবে ১৯ ডিসেম্বর।

সংবিধান অনুযায়ী ইলেকটররা জনমতের বিপক্ষে যেতে পারেন কিংবা ভোট প্রদান করা থেকে বিরত থাকতে পারেন। এই ধরণের ইলেকটোরাল কলেজ ভোটিংয়ের নাম ‘ফেইথলেস ইলেকটর’। তবে এই বিষয়টি নিয়ে খুব বেশি আলোচনা হয়নি। ২০০০ সালে জর্জ ডব্লিউ বুশ, আল গোরকে সামান্য ব্যবধানে হারানোর পরে ‘ফেইথলেস ইলেকটর’ নিয়ে আলোচনা হয়েছিল। ডেমোক্রেট প্রার্থী আল গোরও হিলারির মতো জনপ্রিয় ভোট বেশি পেয়েছিলেন।

তবে যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে ইলেকটরদের ভোটারদের মতের বিরুদ্ধে যাওয়ার নজির খুবই বিরল। নিউইয়র্ক টাইমসের হিসাব অনুযায়ী, দেশটির ইতিহাসের ৯৯ শতাংশ সময় ইলেকটররা ভোটারদের কথাই অনুসরণ করেছেন। সর্বশেষ ফেইথলেস ইলেকটরের ঘটনার নজির দেখা যায় ২০০৪ সালের মার্কিন নির্বাচনে। মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের একজন ইলেকটর ডেমোক্রেট প্রার্থী জন কেরিকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে ভোট না দিয়ে তার রানিং মেট জন এডওয়ার্ডসকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে ভোট দেন। অবশ্য ২৮৬ ভোট পেয়ে নিজের পুন-নির্বাচন তখন নিশ্চিত করে ফেলেছিলেন জর্জ ডব্লিউ বুশ।

ফেইথলেস ইলেকটররা ২৯টি রাজ্যে ভোটারদের মতের বিরুদ্ধে যেতে পারেন না, যদিও ভোটারদের মতের বিরুদ্ধে যাওয়ার শাস্তি খুব হালকা। তবে বিষয় হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের ২৪০ বছরের ইতিহাসে ফেইথলেস ইলেকটররা কখনো জনমতের বিরুদ্ধে কিছু করেনি। তবে ইলেকটোরাল কলেজ গঠনের পেছনে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতাদের চিন্তাটা ছিল, প্রত্যক্ষ গণতন্ত্রের ভয়। যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা ঘোষণার দলিলে স্বাক্ষরকারী অ্যালেক্সান্ডার হ্যামিলটন বলেন, ইলেকটররা নিশ্চিত করবে যে কোনো অযোগ্য ব্যক্তির যাতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট না হতে পারে।

ট্রাম্পকে নিয়ে রিপাবলিকান দলের মধ্যে যে ক্ষোভ রয়েছে তাতে কিছু ইলেকটর ডিসেম্বরের নির্বাচনে ‘ফেইথলেস ইলেকটরে’ পরিণত হতে পারেন। টেক্সাসের রিপাবলিকান ইলেকটর ক্রিস সুপ্রান গত আগস্টে বলেছিলেন, ট্রাম্পকে তিনি এতটাই অযোগ্য মনে করেন যে তিনি ডিসেম্বরে ১৯ তারিখ হিলারিকে ভোট দিতে পারেন। নিউইয়র্ক পোস্ট।

Share This: