আখেরি মোনাজাতে বিশ্বশান্তি কামনা

নিউজ ডেস্ক: আখেরি মোনাজাতে বিশ্বশান্তি কামনাবিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাতে আল্লাহর দরবারে মানুষের অশ্রুসজল প্রার্থনা, হে আল্লাহ, আমাদের দোয়া কবুল করে নাও। হে পরওয়ারদিগার, আমাদের ঈমান রক্ষা করো, আমাদের ভালো কাজগুলো মঞ্জুর করে নাও। হে রাহমানির রাহিম, সব বিপদ দূর করে দাও, সারা দুনিয়ার মানুষের ওপর রহমত বর্ষণ করো।

বিনম্র সুরে ইহকাল ও পরকালের মালিক মহান আল্লাহ পাকের কাছে দুই হাত তুলে এই মোনাজাত করছিলেন ভারতের মাওলানা মোহাম্মদ সা’দ। আর তার মোনাজাতের মধ্যে কিছুক্ষণ পর পর ‘আমিন’ ‘আমিন’ ধ্বনি উঠছিল। বিশ্ব ইজতেমার ময়দান ও আশপাশের কয়েক কিলোমিটার এলাকাজুড়ে লাগানো মাইকে সেই ধ্বনি ছড়িয়ে পড়ছিল তুরাগ নদের চারপাশের এলাকায়।

গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগ নদের পাশে বিশ্ব ইজতেমার মূল মঞ্চ থেকে রোববার সকাল সোয়া ১১টার দিকে শুরু হয় এ বছরের ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাত। আরবি ও উর্দু ভাষায় তার সুমধুর সুরের মোনাজাত শুরু হতেই লাখো মুসল্লির কলরব মুহূর্তে থেমে যায়। বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে নেমে আসে নীরবতা। তার সঙ্গে লাখো মুসল্লি দুই হাত তুলে ‘আমিন’, ‘আল্লাহুম্মা আমিন’ ধ্বনি তোলেন আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আশায়।

ঢাকার রমনা উদ্যানসংলগ্ন কাকরাইল মসজিদে ১৯৪৬ সালে প্রথম ইজতেমার আয়োজন করা হয়। মুসল্লির সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় ১৯৪৮ সালে ইজতেমার স্থান পরিবর্তন করে বর্তমান হাজি ক্যাম্পের স্থলে নেয়া হয়। ১৯৫৮ সালে ইজতেমা হয় সিদ্ধিরগঞ্জে। মুসল্লি আরো বাড়তে থাকায় সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে ১৯৬৬ সালে টঙ্গীর তুরাগতীরের মাঠে ইজতেমার স্থান নির্ধারণ করা হয়। সেই মাঠেও স্থান সংকুলান না হওয়ায় ২০১১ সাল থেকে দুই পর্বে ইজতেমা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সেই হিসাবে এবার ইজতেমার প্রথম পর্ব ১৩ জানুয়ারি শুরু হয়ে শেষ হয় ১৫ জানুয়ারি। আর দ্বিতীয় পর্ব ২০ জানুয়ারি শুরু হয়ে রোববার ২২ ফেব্রুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয়।

Share This: