রাজধানীর বাজারগুলো করোনা সংক্রমণের হটস্পট! | Live Press24

রাজধানীর বাজারগুলো করোনা সংক্রমণের হটস্পট!

Published on: 6:03 pmApril 10, 2020

লাইভ প্রেস২৪,ঢাকা: রাজধানীর উত্তরা বিভাগের গড়ে উঠা কাঁচা বাজারের সামনে সেনাবাহিনীর একটি গাড়ি থেকে বাজারের ক্রেতাদের উদ্দেশ্য করে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে দ্রুত বাজার শেষ করে ঘরে ফিরে যেতে অনুরোধ জানানো হয়। এ সময় কাঁচাবাজার, ফলের দোকান, মাছ ও মাংসের দোকানে ক্রেতাদের গায়ে গা ঘেঁষে বাজার করতে দেখা যায়। উত্তরা ১১ নম্বর সেক্টর কাঁচাবাজারে ক্রেতা- বিক্রেতার সবচেয়ে বেশি ভীড় লক্ষ্য করা গেছে। বাজার পরির্দনে গিয়ে দেখা যায় সেখানে কোন নিয়মকানুন নেই। ক্রেতা-বিক্রেতা ও সর্বসাধারণ কেউ সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাফেরা করছেন না। তবে, এখানে পুলিশের একটি টহল গাড়িকে বারবার চক্কর দিতে দেখা যায়।
এছাড়া তুরাগের নলভোগ গ্রামে ঢুকতে সোনারগাওঁ জনপথ সড়ক উত্তরা রূপায়ন সিটির পাশে একটি কাঁচা বাজার রয়েছে। সেখানেও একই ধরনের অবস্থা দেখা গেছে। মাঝে মধ্যে পুলিশ বাজারে গেলে ব্যবসায়ীরা দোকান ফেলে রেখে দৌড়ে চলে যায় এবং পুলিশ চলে যাবার পর আবার আগের অবস্থায় ফিরে আসে। এখানেও সামাজিক দূরত্ব কেউ মানছেননা। এই বাজারে বহু লোকের অবাধ চলাফেরা লক্ষ্য করা গেছে।
অপর দিকে, তুরাগের ডিয়াবাড়ি গ্রামের কালা মিয়ার মার্কেট কাঁচাবাজার,পাশে আল্লাহরদান কাঁচাবাজারে একই ধরনের অবস্থা লক্ষ্য করা গেছে। সেখানে সকালে ও বিকেলে বহু লোকের চলাফেরা রয়েছে। সকাল সন্ধ্যা স্থানীয়-বহিরাগত ও বহু তরুন লোকের ঘুরাঘুরি লক্ষ্য করা গেছে। এছাড়া বেশ কিছু তরুন রাত দিন মোটরসাইকেলে করে এলাকা থেকে অন্য এলাকায় দিব্যি ঘুওে বেড়াতে দেখা গেছে। বহিরাগতদের অবাধ চলাচল ফেরাতে অনেক স্থানে বাঁশ দিয়ে বেড়া দিয়ে রাস্তা বন্ধসহ লকডাউন কাগজে লিখে দিয়েছে। এ এলাকার কিছু ব্যবসায়ী সরকারী নির্দেশনা ও নিয়ম নীতির কোন তোয়াক্কাই করছেন না। যে যার মত দেদাচেছ ব্যবসা করে যাচেছন বলে এলাকাবাসিদের কাছ থেকে অভিযাগে পাওয়া গেছে।

স্থানীয় এলাকাবাসি ও সচেতন মহলের কাছ থেকে অভিযোগ পাওয়া পর গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) উত্তরা বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) নাবিদ কামাল শৈবাল ও তুরাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: নুরুল মোত্তাকিন বিষয়টি জানানোর পর পুলিশ এসে এসব অবৈধ দোকানপাট বন্ধ করে দেন। একই সাথে পুলিশ সবাইকে সামাজিক দূরত্ব বজার রাখা সহ সরকারী নির্দেশনা মেনে চলার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ ও আইইডিসিআর পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদি সেব্রিনা ফ্লোরাসহ স্বাস্থ্য সেক্টরের শীর্ষ দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা বারবার জনসমাগম এড়িয়ে চলতে নিষেধ করলেও নগরবাসী তা মানছেন না। এক্ষেত্রে ছোটবড় বাজারগুলো করোনাভাইরাস সংক্রমণের হটস্পট হয়ে উঠছে।

ডিএমপি উত্তরা বিভাগের পুলিশের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য আমরা মাইকিং করে মানুষজনকে সচেতন করছি। ঘর থেকে বের না হওয়ার জন্য বারবার মাইকিং করছি।

এ কারণে রাজধানীর বাজার গুলোতে জনসমাগম কমাতে না পারলে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা জ্যামিতিক হারে বাড়ার আশঙ্কা তৈরি হচ্ছে বলে বিশেষজ্ঞ, সংশ্লিস্ট মহল মনে করেন।

লাইভ প্রেস২৪/মনির হোসেন জীবন/এমআর