পলাশবাড়ীতে বাঁধ ভেঙ্গে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত | Live Press24

পলাশবাড়ীতে বাঁধ ভেঙ্গে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

Published on: 10:03 pmSeptember 29, 2020

লাইভ প্রেস২৪,গাইবান্ধা: উজান থেকে নেমে আসা পানির ঢলে ও গত কয়েক দিনের টানা বর্ষণে গাইবান্ধায় করতোয়া, ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা ও ঘাঘটসহ জেলার সবগুলো নদ-নদীর পানি অব্যাহতভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এদিকে অন্যান্য নদী গুলোর মতো করতোয়া নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় পলাশবাড়ী উপজেলায় কিশোরগাডী ইউনিয়নের টোংরাদহের ২টি পয়েন্টে ৯০ ফুট বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙ্গে যাওয়ায় ৬টি গ্রাম আকস্মিকভাবে প্লাবিত হয়। ফলে বসতবাড়ীসহ রোপা আমন ধান ও অন্যান্য ফসল তলিয়ে গেছে।

এছাড়া পলাশবাড়ী উপজেলার কিশোরগাড়ী ও হোসেনপুর ইউনিয়নের বেশকিছু এলাকায় প্রায় ২০ টি গ্রামে পানি ঢুকে পড়েছে। অসময়ে আকস্মিক এই বন্যার সংশ্লিষ্ট এলাকায় জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। কিশোরগাড়ী ইউনিয়নের মুল ২ টি রাস্তা ছাড়া ইউনিয়নের বেশির ভাগ রাস্তার উপর দিয়ে পানি রয়েছে এছাড়াও ঘরবাড়ীতে পানি ওঠায় বাড়ীর লোকজন চরম দুর্ভোগের মুখে পড়েছে। রাস্তাঘাট ডুবে গেছে। ফলে যোগাযোগ ব্যবস্থা ব্যাহত হচ্ছে। ইতিমধ্যে বন্যা কবলিত এলাকায় রোপা আমন চাষী ৪ হাজার ৫শত ৫০ টি, সবজ্বি ফসল চাষী ১ হাজার ৩ শত ৯৫ টি,কলা চাষী ৬০ টি পরিবার তার চাষাবাদকৃত ফসল নিয়ে ও তাদের পালিত গবাদী পশু,গরু,ছাগল,হাস মুরগী,পুকুরের মাছ নিয়ে বিপদগ্রস্থ হয়ে পড়েছে।

এছাড়াও পলাশবাড়ীতে কয়েকদিনের অবিরাম ভারী বর্ষণে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে বীজতলা,পুকুরের মাছ, কাঁচা তরি-তরকারির ফসল,কলার ক্ষেত,ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। । জানা গেছে, গত ৮-১০ দিনের লাগাতার অবিরাম ভারী বর্ষণের ফলে গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার কিশোরগাড়ী, হোসেনপুর, পলাশবাড়ী, বরিশাল, মহদীপুর, বেতকাপা, পবনাপুর, মনোহরপর ও হরিনাথপুর ইউনিয়নের সকল নিম্নাঞ্চল স্থান সমূহে বৃষ্টির পানি বৃদ্ধি পেয়ে রোপা আমনের ক্ষেত, বীজতলা ও গ্রামীন রাস্তা-ঘাটগুলো পানির নিচে তলিয়ে গেছে।ফলে আগামী চলমান আমন মৌসুমে আমন ধান,সবজি আশানুরুপ ফলনে বঞ্চিত হবে চাষীরা। এছাড়াও সমগ্র উপজেলার অধিকাংশ পুকুরে পানি উপছে চাষ করা মাছ বেড়িয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়ে পড়েছে।মাছ চাষীরা মাছ আটকাতে জাল ব্যবহার শুরু করেছেন।এদিকে উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল এলাকা সমূহের রোপা আমনের ক্ষেত,বীজতলা তলিয়ে যাওয়ায় গত ২৮ সেপ্টেম্বর সোমবার বিকেলে উপজেলার ক্ষয়ক্ষতি হওয়ার চিত্র সরেজমিন পরিদর্শন করেন,গাইবান্ধা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মাসুদুর রহমান,অতিরিক্ত উপ-পরিচালক শস্যা কামরুজ্জামান, পলাশবাড়ী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আজিজুল ইসলাম,উপ-সহকারী মন্জুর হাসান,শাপলা বেগম।পানি বৃদ্ধির ফলে নিম্নঞ্চল প্লাবিত হয়ে কৃষি ক্ষেতে ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে জানতে চাইলে পলাশবাড়ী কৃষি অধিদপ্তর জানান,রোপা আমন আংশিক ক্ষয়ক্ষতির পরিমান-১ হাজার হেক্টর দানাদার ফসলি জমি,সবজি ফসলি জমি ক্ষতির পরিমান-৮৫ হেক্টর ,কলা আংশিক জমির ক্ষয়ক্ষতির পরিমান-৫ হেক্টর।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ কামরুজ্জামান নয়ন জানান,বাধ ভেঙ্গে পানি ঢুকে নতুন এলাকা প্লাবিত হলেও এখানে তেমন বড় কোন বন্যার প্রভাব পড়েনি । তবে এ এলাকায় ক্ষতিগ্রস্ত অবস্থায় রয়েছে আবাদী জমি গুলো এগুলো পানির নিচে তলিয়ে আছে আশা করা হচ্ছে যদি পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকে এবং আগামী ২ তিন দিনে যদি পানি নেমে যায় তাহলে ফসলের ক্ষয়ক্ষতি কম হবে । যে কোন দূর্যোগ মোকাবেলার জন্য অঙ্গিকার করেছেন বর্তমান সরকার ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের পাশে সরকার আছে এবং থাকবে । তিনি বন্যা কবলিত এলাকার কৃষকদের উদ্দেশ্যে বলেন, হতাশার কিছু নেই, পরিস্থিতির উপর বিবেচনা করে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের তালিকা মাধ্যমে কৃষি সহায়তার প্রদান করা হবে।

লাইভ প্রেস২৪/আশরাফুল ইসলাম/এমআর

আরও পড়ুন

সিজারের পর প্রসূতির পেটে গজ রেখেই সেলাই!
রংপুরে স্কুলছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় পুলিশের এএসআই রাহেনুল জড়িত
সিরাজগঞ্জে মোহাম্মদ নাসিমের স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত
মান্দায় ঐতিহ্যবাহী কারাম উৎসব অনুষ্ঠিত
মাইজকান্দিতে পাকা সড়কে বিরাট গর্ত, জনদুর্ভোগ চরমে
রংপুর নগরীতে নকশী ফার্নিচারের শো-রুম উদ্বোধন
স্ত্রীকে হত্যার দুইদিন পর বিষপানে স্বামীর আত্মহত্যা!
পত্মীতলায় দিনব্যাপি ব্লাড ক্যাম্পিং
কুড়িগ্রামে ট্রেজারীতে সংরক্ষিত অচল স্ট্যাম্প ভস্মীভূত
সুদের কারবারি ইমদাদুলের হাতে নারী নির্যাতন ও লুটপাটের অভিযোগ