অগাস্ট ১০, ২০২২

নিউজ ডেস্ক: পূর্ব নির্ধারিত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আসন্ন ঈদুল ফিতর উপলক্ষে শুক্রবার (১৫ এপ্রিল) সকাল থেকেই বাসের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু করেছে বাস কোম্পানিগুলো। আগামী ২৬ এপ্রিল থেকে ২ মে অর্থাৎ সাতদিনের অগ্রিম টিকেট দেওয়া হচ্ছে। তবে যাত্রীদের খুব একটা চাপ নেই কাউন্টারগুলোতে।

সরেজমিনে দেখা যায়, গাবতলী বাসটার্মিনাল এলাকায় বিভিন্ন কাউন্টারে অগ্রিম টিকিট দেওয়া শুরু হয়েছে। কিন্তু টিকিট বিক্রির প্রথম দিনে অগ্রিম টিকিট কাটতে যাত্রীদের ছিল না দীর্ঘ লাইন। তবে যে দু-একজন যাত্রী বাসের অগ্রিম টিকিট কাটতে আসছেন তারা কোনো ঝক্কি ঝামেলা ছাড়াই টিকিট কেটে চলে যেতে পারছেন। অগ্রিম টিকিট কাটতে আসা যাত্রীরা সন্তুষ্ট প্রকাশ করেছেন।

তবে বাংলাদেশ বাস-ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের ধারণা আগামীকাল শনিবার থেকে যাত্রীদের চাপ বাড়বে।

পরিবহন সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এবারের ঈদে লম্বা ছুটি থাকায় সবাই একেবারে শেষদিকে বাড়ি যেতে পারে। সেক্ষেত্রে ৩০ এপ্রিল ও ১ মে’র টিকিটের বেশি চাহিদা থাকবে। অনলাইনে ৩০ শতাংশ টিকিট কেনার সুযোগ থাকায় মানুষ সেদিকে বেশি আগ্রহী বলে জানান তারা। ভবিষ্যতে অনলাইনে আরও বেশি টিকিট দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন হানিফ এন্টারপ্রাইজের জেনারেল ম্যানেজার।

এদিকে বাসের মালিকপক্ষ জানায়, টিকিট বিক্রির জন্য সব পরিবহনের আলাদা কাউন্টার খোলা হয়েছে। বিশেষ করে দক্ষিণ, দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল এবং উত্তরাঞ্চলের জেলার বাসের টিকিট বিক্রি করা হচ্ছে। বাস কাউন্টার ও অনলাইন থেকে কয়েকটি পরিবহনের টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন যাত্রীরা। গাবতলী, সায়েদাবাস, কল্যাণপুর, আসাদগেট, আরামবাগ ও মৌচাকে বিভিন্ন আন্তঃজেলা বাসের কাউন্টার থেকে আগাম টিকিট পাওয়া যাচ্ছে।

এর আগে সোমবার বাংলাদেশ বাস-ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শুভঙ্কর ঘোষ রাকেশ জানিয়েছেন, সব বাস মালিকরা ১৫ এপ্রিল থেকে একযোগে ঈদের অগ্রিম টিকিট দেওয়া শুরু করবে। ওই দিন সকাল থেকেই সংশ্লিষ্ট বাসের কাউন্টার থেকে টিকিট সরবরাহ করতে পারবেন যাত্রীরা।